ঢাকা ০২:৩৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই ২০২৪, ২৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo বালিয়াডাঙ্গীতে প্রকল্পে সঞ্চয়ের টাকা পেলেন ৮০ জন নারী শ্রমিক Logo দখল আর দুষণে সুনামগঞ্জ পৌর শহরের খালগুলো বিলীন, সচেতন নাগরিক সংগঠন এর মানববন্ধন Logo রাণীশংকৈলে মাদরাসা সভাপতির বিরুদ্ধে ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ Logo নদীতে গোসল করতে নেমে শিক্ষার্থী নিখোঁজ, দুইদিন পর মরদেহ উদ্ধার Logo শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন ঠাকুরগাঁও আনসারের জেলা কমান্ড্যান্ট Logo ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের উদ্যোগে অভিযান চালিয়ে মাদকদ্রব্য উদ্ধার সহ ৬ জন গ্রেপ্তার । Logo রাণীশংকৈলে নিখোঁজের তিনদিন পর ৪ মাদ্রাসা ছাত্র উদ্ধার Logo প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে ১৭ জনের মধ্যে ১০ জন কারাগারে Logo বালিয়াডাঙ্গীতে শ্বশান ঘাটের বন্ধ রাস্তা খুলে দিলেন এমপি সুজন Logo ঠাকুরগাঁওয়ে ব্রীজ নির্মাণের দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
জনপ্রিয় দৈনিক আজকের ঠাকুরগাঁও পত্রিকায় আপনাকে স্বাগতম... উত্তরবঙ্গের গণমানুষের ঠিকান এই স্লোগানকে সামনে রেখে দেশ জনপ্রিয় পত্রিকা দৈনিক আজকের ঠাকুরগাঁও এর জন্য, দেশের প্রতিটি জেলা, উপজেলা, বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি কলেজে একযোগে সাংবাদিক নিয়োগ চলছে। আপনি যদি সৎ ও কর্মঠ হোন আর অনলাইন গনমাধ্যমে কাজ করতে ইচ্ছুক তবে আবেদন করতে পারেন। আবেদন পাঠাবেন নিচের এই ঠিকানায় ajkerthakurgaon@gmail.com আমাদের ফেসবুল পেইজঃ https://www.facebook.com/ajkerthakurgaoncom প্রয়োজনে যোগাযোগ করুন মোবাইল : ০১৮৬০০০৩৬৬৬

ঠাকুরগাঁওয়ে যৌতুক ছাড়াই একসাথে বিবাহ করলেন দুই বন্ধু

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৭:০৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪
  • / 22
আজকের ঠাকুরগাঁও অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

প্রায় ৫ বছর একসাথে পড়াশোনা করেছেন হারুন অল রশিদ ও মুরাদ আলম। এবার বিয়ের পিড়িতেও বসলেন একসাথে, তাও আবার যৌতুক বিহীন। যৌতুক ছাড়াই এক লক্ষ টাকা দেন মোহর নগদ পরিশোধ করে স্ত্রীকে গ্রহণ করেছেন।

বৃহস্পতিবার (১৭ এপ্রিল)বিকালে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা পরিষদ ক্রীড়া সংস্থা মাঠে তাদের দুজনের বিবাহ সম্পন্ন হয়। বড়বাড়ী ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী দবিরুল ইসলাম দুজনের বিয়ে রেজিষ্ট্রি করেন।

সমাজে যৌতুক বিহীন বিবাহ উৎসাহ যোগাতে ব্যতিক্রম এই আয়োজন করেছে আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা গ্লোবাল রিলিফ ট্রাস্ট (জিআরটি)। বিবাহ পরবর্তী দাম্পত্য জীবন সুখের করতে দোয়ার পাশাপাশি বর ও কনেকে আসবাবপত্র, সেলাই মেশিন ও কাপড় চোপড় উপহার দিয়েছে সংস্থাটি।

জোড়া বিয়ে হয়েছে ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার কাদিহাট গ্রামের আ: হামিদের ছেলে হারুন অর রশিদের সাথে একই উপজেলার চন্দন চহট গ্রামের মোহাম্মদ আলীর মেয়ে মোছা: বুশরা আক্তারের এবং ধুলঝারী গ্রামের সেরকেট আলী ছেলে মুরাদ আলমের সাথে কাদিহাট আমতলা গ্রামের আকবর আলীর মেয়ে আফসানা আক্তারের।

বর হারুন অর রশিদ ও মুরাদ আলম জানান, দুই বন্ধু একসাথে পড়াশোনা করেছি। যৌতুক বিহীন বিয়ে করার ইচ্ছে ছিল। তবে একসাথে দুজনের বিয়ে হবে এটা ড়। এদিকে দুই বন্ধুর সাথে একই দিনে যৌতুক বিহীন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে খুশি কনে বুশরা ও আফসানা। দাম্পত্য জীবনে সকলে নিকট দোয়া চেয়েছেন তাঁরা।

কনে বুশরার বাবা জানান, চার মেয়ের মধ্যে দুই মেয়েকে তিনি আগে যৌতুক ছাড়া বিয়ে দিয়েছেন। তৃতীয় মেয়েকেও যৌতুক ছাড়া বিয়ে দিলেন। ইচ্ছে রয়েছে চতুর্থ মেয়েও তিনি যৌতুক ছাড়া বিয়ে দিবেন।

এদিকে বর মুরাদের বাবাও জানালেন একই কথা। চার ছেলের মধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় ছেলেকে যৌতুক ছাড়া বিয়ে দিলেন। এরপরে দুজন ছেলেও একই ভাবে বিয়ে দেওয়ার ইচ্ছা রয়েছে তার।

বর ও কনের চারটি পরিবারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিটি পরিবারের যৌতুক প্রথা বিরোধী। তারা নিজেরাও পূর্বের বিয়ে গুলো যৌতুক ছাড়া করেছেন। ভবিষ্যতে তাদের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনদের যৌতুক প্রথা থেকে বের হয়ে আসতে এমন উদ্যোগ তাদের।

আয়োজক কমিটি দাতা সংস্থার জিআরটির স্থানীয় প্রতিনিধি মুফতি শরিফুল ইসলাম জানান, চারটি পরিবারের সম্মতিতে যৌতুক বিহীন বিবাহ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। বিবাহ সম্পন্ন এবং জোড়া দম্পত্তিকে সংস্থার পক্ষ থেকে উপহার প্রদান করা হয়েছে। যৌতুক বিহীন বিয়ে করার উৎসাহ হিসেবে বরযাত্রী ও বিয়ের যাবতীয় আয়োজন করা হয়েছে সংস্থার পক্ষ থেকে। আগামী এমন কার্যক্রম অব্যাহত রাখার কথা জানান তিনি।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফছানা কাওছার বলেন, গ্রামে বিয়ের পর যৌতুক লেনদেনকে কেন্দ্র করে দাম্পত্য জীবনে তিক্ততা তৈরি হয়। পরে অনেক সংসার ভেঙ্গে যায়। সামাজিক এমন অবক্ষয় থেকে বেরিয়ে আসতে যৌতুক বিহীন বিয়ের বিকল্প নেই। সংস্থাটির এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। পাশাপাশি যারা বৃত্তবান আছেন, সুযোগ থাকলেও তারাও এমন মহৎ কাজে এগিয়ে আসতে পারেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ঠাকুরগাঁওয়ে যৌতুক ছাড়াই একসাথে বিবাহ করলেন দুই বন্ধু

আপডেট সময় : ০৯:৪৭:০৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

প্রায় ৫ বছর একসাথে পড়াশোনা করেছেন হারুন অল রশিদ ও মুরাদ আলম। এবার বিয়ের পিড়িতেও বসলেন একসাথে, তাও আবার যৌতুক বিহীন। যৌতুক ছাড়াই এক লক্ষ টাকা দেন মোহর নগদ পরিশোধ করে স্ত্রীকে গ্রহণ করেছেন।

বৃহস্পতিবার (১৭ এপ্রিল)বিকালে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা পরিষদ ক্রীড়া সংস্থা মাঠে তাদের দুজনের বিবাহ সম্পন্ন হয়। বড়বাড়ী ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী দবিরুল ইসলাম দুজনের বিয়ে রেজিষ্ট্রি করেন।

সমাজে যৌতুক বিহীন বিবাহ উৎসাহ যোগাতে ব্যতিক্রম এই আয়োজন করেছে আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা গ্লোবাল রিলিফ ট্রাস্ট (জিআরটি)। বিবাহ পরবর্তী দাম্পত্য জীবন সুখের করতে দোয়ার পাশাপাশি বর ও কনেকে আসবাবপত্র, সেলাই মেশিন ও কাপড় চোপড় উপহার দিয়েছে সংস্থাটি।

জোড়া বিয়ে হয়েছে ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার কাদিহাট গ্রামের আ: হামিদের ছেলে হারুন অর রশিদের সাথে একই উপজেলার চন্দন চহট গ্রামের মোহাম্মদ আলীর মেয়ে মোছা: বুশরা আক্তারের এবং ধুলঝারী গ্রামের সেরকেট আলী ছেলে মুরাদ আলমের সাথে কাদিহাট আমতলা গ্রামের আকবর আলীর মেয়ে আফসানা আক্তারের।

বর হারুন অর রশিদ ও মুরাদ আলম জানান, দুই বন্ধু একসাথে পড়াশোনা করেছি। যৌতুক বিহীন বিয়ে করার ইচ্ছে ছিল। তবে একসাথে দুজনের বিয়ে হবে এটা ড়। এদিকে দুই বন্ধুর সাথে একই দিনে যৌতুক বিহীন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে খুশি কনে বুশরা ও আফসানা। দাম্পত্য জীবনে সকলে নিকট দোয়া চেয়েছেন তাঁরা।

কনে বুশরার বাবা জানান, চার মেয়ের মধ্যে দুই মেয়েকে তিনি আগে যৌতুক ছাড়া বিয়ে দিয়েছেন। তৃতীয় মেয়েকেও যৌতুক ছাড়া বিয়ে দিলেন। ইচ্ছে রয়েছে চতুর্থ মেয়েও তিনি যৌতুক ছাড়া বিয়ে দিবেন।

এদিকে বর মুরাদের বাবাও জানালেন একই কথা। চার ছেলের মধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় ছেলেকে যৌতুক ছাড়া বিয়ে দিলেন। এরপরে দুজন ছেলেও একই ভাবে বিয়ে দেওয়ার ইচ্ছা রয়েছে তার।

বর ও কনের চারটি পরিবারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিটি পরিবারের যৌতুক প্রথা বিরোধী। তারা নিজেরাও পূর্বের বিয়ে গুলো যৌতুক ছাড়া করেছেন। ভবিষ্যতে তাদের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনদের যৌতুক প্রথা থেকে বের হয়ে আসতে এমন উদ্যোগ তাদের।

আয়োজক কমিটি দাতা সংস্থার জিআরটির স্থানীয় প্রতিনিধি মুফতি শরিফুল ইসলাম জানান, চারটি পরিবারের সম্মতিতে যৌতুক বিহীন বিবাহ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। বিবাহ সম্পন্ন এবং জোড়া দম্পত্তিকে সংস্থার পক্ষ থেকে উপহার প্রদান করা হয়েছে। যৌতুক বিহীন বিয়ে করার উৎসাহ হিসেবে বরযাত্রী ও বিয়ের যাবতীয় আয়োজন করা হয়েছে সংস্থার পক্ষ থেকে। আগামী এমন কার্যক্রম অব্যাহত রাখার কথা জানান তিনি।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফছানা কাওছার বলেন, গ্রামে বিয়ের পর যৌতুক লেনদেনকে কেন্দ্র করে দাম্পত্য জীবনে তিক্ততা তৈরি হয়। পরে অনেক সংসার ভেঙ্গে যায়। সামাজিক এমন অবক্ষয় থেকে বেরিয়ে আসতে যৌতুক বিহীন বিয়ের বিকল্প নেই। সংস্থাটির এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। পাশাপাশি যারা বৃত্তবান আছেন, সুযোগ থাকলেও তারাও এমন মহৎ কাজে এগিয়ে আসতে পারেন।