ঢাকা ০৯:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo পীরগঞ্জে ভোটগ্রহণ কাল, কর্মকর্তা নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ Logo বিরামপুরে দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক রচনা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতা ২০২৪ অনুষ্ঠিত , Logo ২৪ ঘন্টার মধ্যে রেজিয়া হত্যার রহস্য উদঘাটন এবং ০২ আসামি গ্রেফতার Logo বিরামপুরে পুলিশ বক্স ও বিট পুলিশিং কার্যালয়ের উদ্বোধন Logo স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে, স্মার্ট শিক্ষক হতে হবেঃ–এমপি মাজহারুল ইসলাম Logo ঠাকুরগাঁওয়ের আকচা ইউনিয়ন পরিষদের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা Logo ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের অভিযানে ৬ জন গ্রেফতার – মাদক উদ্ধার ! Logo তাহিরপুরে দুপুর গড়ালেও খোলা হয়নি বিদ্যালয়, সাংবাদিকদের গালিগালাজ করেন সহকারী শিক্ষক Logo রাণীশংকৈলে সেই স্বর্ণের পাহাড় ঘিরে রেখেছে পুলিশ, মাটি খুঁড়তে গেলেই গুনতে হচ্ছে জরিমানা Logo শিশুর মুখে সিগারেট, পুরুষাঙ্গে ইট বেঁধে ভিডিও, গ্রেপ্তার তিন কিশোর
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
জনপ্রিয় দৈনিক আজকের ঠাকুরগাঁও পত্রিকায় আপনাকে স্বাগতম... উত্তরবঙ্গের গণমানুষের ঠিকান এই স্লোগানকে সামনে রেখে দেশ জনপ্রিয় পত্রিকা দৈনিক আজকের ঠাকুরগাঁও এর জন্য, দেশের প্রতিটি জেলা, উপজেলা, বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি কলেজে একযোগে সাংবাদিক নিয়োগ চলছে। আপনি যদি সৎ ও কর্মঠ হোন আর অনলাইন গনমাধ্যমে কাজ করতে ইচ্ছুক তবে আবেদন করতে পারেন। আবেদন পাঠাবেন নিচের এই ঠিকানায় ajkerthakurgaon@gmail.com আমাদের ফেসবুল পেইজঃ https://www.facebook.com/ajkerthakurgaoncom প্রয়োজনে যোগাযোগ করুন মোবাইল : ০১৮৬০০০৩৬৬৬

ঠাকুরগাঁওয়ে গ্রীষ্মকালে ফাল্গুনের ছোঁয়া মুকুল ভরে গেছে আমের বাগানগুলো

মনসুর আহাম্মেদ
  • আপডেট সময় : ০১:৪৭:৪৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪
  • / 23
আজকের ঠাকুরগাঁও অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ঠাকুরগাঁওয়ে পাতাঝরা ষড়ঋতুর রাজা বসন্ত। আবহমান বাংলার সৌন্দর্যের রাজা বলে পরিচিতি গ্রীষ্মকাল। ফাগুনের ছোঁয়ায় পলাশ-শিমুলের বনে লেগেছে আগুন রাঙা ফুলের মেলা। শীতের জড়তা কাটিয়ে কোকিলের সেই সুমধুর কহু ডাকে মাতাল করতে আবারও ফিরে এসেছে ঋতুরাজ বসন্ত। রঙিন-বন, গাছে গাছে নতুন কুড়ি গজিয়েছে ফুলের সমারোহে, প্রকৃতি যেমন সেজেছে বর্ণিল সাজে, তেমনি নতুন সাজে সেজেছে আম গাছগুলোও।

আমের মুকুলে ভরপুর আর মৌ মৌ ঘ্রাণে জানান দিচ্ছে বসন্তের আগমন। শোভা ছড়াচ্ছে নিজস্ব মহিমায়। মুকুলে মুকুলে ভরে গেছে বাগানগুলো। ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার বাগান মালিক ও আম চাষিরা আশা করছেন বড় ধরনের কোন প্রাকৃতির দুর্যোগ না হলে এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবার আমের বাম্পার ফলন হবে। আমচাষি ও বাগান মালিকরা বাগানে পরিচর্চা নিয়ে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। অবশ্য গাছে মুকুল আশার আগে থেকেই গাছের পরিচর্চা করে আসছেন তারা। যাতে করে গাছে মুকুল বা গুটি বাঁধার সময় কোন সমস্যার সৃষ্টি না হয়। সারিবদ্ধ গাছে ভরপুর আমের মুকুল যেন শোভা ছড়াচ্ছে তার নিজস্ব মহিমায়। উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় হাড়ীভাঙ্গা, ফজলী, খিড়সাপাতি, আ¤্রপালী, মোহনা, রাজভোগ, রূপালী, গোপালভোগসহ অন্যান্য জাতের আম চাষ করছে অনেক চাষী। আম চাষে সফল কৃষক ভাকুড়া গ্রামের সাজ্জাদ হোসেন শুভ জানান, পুরোপুরিভাবে ৯০ ভাগ গাছে মুকুল এসেছে। কয়েকদিনের মধ্যেই সকল গাছেই মুকুল আসবে। গতবারে আম বিক্রি করে অনেক টাকা আয় করেছি।

তার মতো উপজেলার নারায়নপুর, র্দুগাপুর, ভাকুড়া, চাপোড়, মছলন্দপুর, ভোমরাদহ, জাবরহাট, বৈরচুনা, হাজীপুর, সৈদয়পুর, কোষারাণীগঞ্জ গ্রামের অনেকেই আমের বাগান তৈরি করেছেন। তারা জানান, ক্ষতিকারক পোকার আক্রমণ কম থাকায় এবার কাঙ্খিত ফলনের আশা করছেন। সুবিধাভোগীদের সুফল দেখে চাষিরা আম চাষে উৎসাহিত হয়ে নিজ নিজ উদ্যোগে নতুন নতুন বাগান সৃজন করছেন। ধীরে ধীরে এ উপজেলা জুড়ে সম্প্রসারিত হচ্ছে আমের বাগান। মানসম্মত আম উৎপাদিত হওয়ায় চাহিদাও বেড়েছে অনেক। এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার আবুল কালাম আজাদ জানান, পীরগঞ্জের আবহাওয়া ও মাটি আম চাষের জন্য উপযোগী। মাঠ পর্যায়ের বাগান ও বসতবাড়ির চতুরপাশ ছাড়াও দন্ডায়মান আম গাছে মুকুল থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত গাছের আম যাতে কোন কারণে বিনষ্ট না হয় সে জন্য সার্বক্ষণিক সর্তক দৃষ্টি রয়েছে এবং কৃষকদের বহুমুখী পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। বড় ধরনের কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে গত বছরের তুলনায় এ বছর অনেক বেশি আমের উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বার্তা সম্পাদক

দৈনিক আজকের ঠাকুরগাঁও এর বার্তা সম্পাদক
ট্যাগস :

ঠাকুরগাঁওয়ে গ্রীষ্মকালে ফাল্গুনের ছোঁয়া মুকুল ভরে গেছে আমের বাগানগুলো

আপডেট সময় : ০১:৪৭:৪৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪

ঠাকুরগাঁওয়ে পাতাঝরা ষড়ঋতুর রাজা বসন্ত। আবহমান বাংলার সৌন্দর্যের রাজা বলে পরিচিতি গ্রীষ্মকাল। ফাগুনের ছোঁয়ায় পলাশ-শিমুলের বনে লেগেছে আগুন রাঙা ফুলের মেলা। শীতের জড়তা কাটিয়ে কোকিলের সেই সুমধুর কহু ডাকে মাতাল করতে আবারও ফিরে এসেছে ঋতুরাজ বসন্ত। রঙিন-বন, গাছে গাছে নতুন কুড়ি গজিয়েছে ফুলের সমারোহে, প্রকৃতি যেমন সেজেছে বর্ণিল সাজে, তেমনি নতুন সাজে সেজেছে আম গাছগুলোও।

আমের মুকুলে ভরপুর আর মৌ মৌ ঘ্রাণে জানান দিচ্ছে বসন্তের আগমন। শোভা ছড়াচ্ছে নিজস্ব মহিমায়। মুকুলে মুকুলে ভরে গেছে বাগানগুলো। ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার বাগান মালিক ও আম চাষিরা আশা করছেন বড় ধরনের কোন প্রাকৃতির দুর্যোগ না হলে এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবার আমের বাম্পার ফলন হবে। আমচাষি ও বাগান মালিকরা বাগানে পরিচর্চা নিয়ে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। অবশ্য গাছে মুকুল আশার আগে থেকেই গাছের পরিচর্চা করে আসছেন তারা। যাতে করে গাছে মুকুল বা গুটি বাঁধার সময় কোন সমস্যার সৃষ্টি না হয়। সারিবদ্ধ গাছে ভরপুর আমের মুকুল যেন শোভা ছড়াচ্ছে তার নিজস্ব মহিমায়। উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় হাড়ীভাঙ্গা, ফজলী, খিড়সাপাতি, আ¤্রপালী, মোহনা, রাজভোগ, রূপালী, গোপালভোগসহ অন্যান্য জাতের আম চাষ করছে অনেক চাষী। আম চাষে সফল কৃষক ভাকুড়া গ্রামের সাজ্জাদ হোসেন শুভ জানান, পুরোপুরিভাবে ৯০ ভাগ গাছে মুকুল এসেছে। কয়েকদিনের মধ্যেই সকল গাছেই মুকুল আসবে। গতবারে আম বিক্রি করে অনেক টাকা আয় করেছি।

তার মতো উপজেলার নারায়নপুর, র্দুগাপুর, ভাকুড়া, চাপোড়, মছলন্দপুর, ভোমরাদহ, জাবরহাট, বৈরচুনা, হাজীপুর, সৈদয়পুর, কোষারাণীগঞ্জ গ্রামের অনেকেই আমের বাগান তৈরি করেছেন। তারা জানান, ক্ষতিকারক পোকার আক্রমণ কম থাকায় এবার কাঙ্খিত ফলনের আশা করছেন। সুবিধাভোগীদের সুফল দেখে চাষিরা আম চাষে উৎসাহিত হয়ে নিজ নিজ উদ্যোগে নতুন নতুন বাগান সৃজন করছেন। ধীরে ধীরে এ উপজেলা জুড়ে সম্প্রসারিত হচ্ছে আমের বাগান। মানসম্মত আম উৎপাদিত হওয়ায় চাহিদাও বেড়েছে অনেক। এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার আবুল কালাম আজাদ জানান, পীরগঞ্জের আবহাওয়া ও মাটি আম চাষের জন্য উপযোগী। মাঠ পর্যায়ের বাগান ও বসতবাড়ির চতুরপাশ ছাড়াও দন্ডায়মান আম গাছে মুকুল থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত গাছের আম যাতে কোন কারণে বিনষ্ট না হয় সে জন্য সার্বক্ষণিক সর্তক দৃষ্টি রয়েছে এবং কৃষকদের বহুমুখী পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। বড় ধরনের কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে গত বছরের তুলনায় এ বছর অনেক বেশি আমের উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।